Headlines
Loading...
স্কুল শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতার আমুল বদল আনল কেন্দ্র!!! দেখে নিন NCTE এর  শিক্ষক নিয়োগের নতুন সিদ্ধান্ত wbbpe@

স্কুল শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতার আমুল বদল আনল কেন্দ্র!!! দেখে নিন NCTE এর শিক্ষক নিয়োগের নতুন সিদ্ধান্ত wbbpe@

 দেশে স্কুল তরে শিক্ষক নিয়োগের নূন্যতম যোগ্যতা বদল আনলো কেন্দ্রীয় নিয়ামক সংস্থার ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর টিচার এডুকেশন (NCTE)।


   এবার থেকে স্নাতক স্তরে 55% নম্বর সহ তিন বছরের বিএড - এমএড এর ইন্ট্রিগেটেড প্রশিক্ষণ থাকলে তবেই প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে শিক্ষকতার জন্য আবেদন জানানো যাবে । তবে প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের শর্ত হলো শিক্ষকতায় নিযুক্ত বিএড কিংবা এমএড উত্তীর্ণ ব্যক্তি কে ছয় মাসের বাধ্যতামূলক ব্রিজ কোর্স করতে হবে কিন্তু নিযুক্ত হওয়ার দু'বছরের মধ্যেই সেই কোর্স সম্পন্ন করতে হবে। দেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে স্নাতক-স্নাতকোত্তর 55% নাম্বার থাকা আবেদন জানানোর প্রাথমিক শর্ত। 

  গত 14 অক্টোবর একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে এনসিটিই। সেখানে শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতা নানা সংশোধনীর কথা বলা হয়েছে। এতদিন অত্যন্ত 50% নম্বর সহ উচ্চমাধ্যমিক ,স্নাতক এবং d.el.ed উর্ত্তীন্ন চাকরিপ্রার্থীরা প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী শিক্ষক পদে নিয়োগের আবেদন জানাতে পারতেন। এমনকি উচ্চ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তরে এ 50% নম্বর পেলেই আবেদন করা যেত। তবে বিএড প্রশিক্ষণ ছিল বাধ্যতামূলক !

   নতুন নিয়মে স্নাতকোত্তরের 55% নম্বর বা সমমানের গ্রেট এবং তিন বছরের ইন্ট্রিগ্রেটেড বিএড- এমএড করা চাকরিপ্রার্থীরাও প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি শিক্ষক পদের জন্য আবেদন জানাতে পারবেন। ফলে এবার থেকে উচ্চমাধ্যমিক ও স্নাতকে 50% নম্বর না থাকলেও স্নাতকোত্তরে 50% নম্বরের পাশাপাশি তিন বছরের ইন্টিগ্রেটেড বিএড -এমএড থাকলে তাকে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীতে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের বিবেচনা করতে হবে । তবে সে ক্ষেত্রে প্রাথমিকে শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত ব্যক্তি কে চাকরি পাওয়ার দু'বছরের মধ্যে ছ'মাসের ব্রিজ কোর্স করতে হবে।

    পশ্চিমবঙ্গে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষক নিয়োগের বাধ্যতামূলকভাবে টিচার্স এলিজিবিলিটি টেস্ট নেওয়া হয় (TET)। NCTE সম্প্রতি জানিয়েছে নয়া জাতীয় শিক্ষা নীতির আওতায় নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত TET নেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এ বছরের 15 ফেব্রুয়ারি মধ্যে দেশের বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় তথ্য পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তার ভিত্তিতে 31 মার্চের মধ্যে বিস্তারিত রিপোর্ট জমা দেয় এনসিটিই গঠিত কমিটি। 

    রাজ্যে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত TET নেওয়ার দায়িত্ব প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদএর। পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত TET নেয় স্কুল সার্ভিস কমিশন (SSC) নবম শ্রেণী থেকে শিক্ষক নিয়োগে টেট নেওয়া হয় না ।সেক্ষেত্রে বিষয়ভিত্তিক পরীক্ষার ভিত্তিতে শিক্ষক নিয়োগ করে SSC । 

    ওয়েস্ট বেঙ্গল ইউনিভার্সিটি অফ টিচার্স ট্রেনিং এডুকেশন প্ল্যানিং এন্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এর উপাচার্য সোমা বন্দ্যোপাধ্যায় অবশ্য এ প্রসঙ্গে একটি অন্য বিষয় তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, 'আমাদের রাজ্যে তিন বছরের বিএড m.ed ইন্টিগ্রেটেড কোর্স নেই। কলেজিয়াম অফ অ্যাসিস্ট্যান্ট হেডমাস্টার এন্ড হেডমিস্ট্রেস এর সম্পাদক সুদিপ্ত দাস আবার বললেন 'এনসিটিই এর নয়া বিজ্ঞপ্তি কে স্বাগত। এর ফলে আরো বেশি প্রার্থী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষায় বসার সুযোগ পাবেন। শিক্ষক নেতা ভীম সেন ওয়ালের বক্তব্য, দেশের চাকরির সংকট তীব্র ।এই পরিস্থিতিতে উচ্চ যোগ্যতার প্রার্থীরাও যাতে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য আবেদন জানাতে পারেন সেই লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় সংস্থা সকলের জন্য দরজা খুলে দিল।


0 Comments: